মেনু নির্বাচন করুন

ভাষা ও সংস্কৃতি

বর্মাছড়ি ইউনিয়নে চাকমা,মারমা ওত্রিপুরা নৃ-গোষ্ঠীসহ বাঙ্গালী জনগণের বসবাস রয়েছে।চাকমা,মারমা ও ত্রিপুরাসহ পার্বত্য এলাকার অন্যান্য জাতি-গোষ্ঠীর লোকজনপ্রাচীনমংগোলীয় শ্রেণীর অন্তর্ভূক্ত।এএলাকারক্ষুদ্রনৃ-গোষ্ঠী সমুহের প্রত্যেকের  নিজস্ব সমৃদ্ধ ভাষা ও সংস্কৃতি রয়েছে।চাকমা ভাষার সাথে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষার মিল খুঁজে পাওয়া যায়।ত্রিপুরা ও মারমা জনগোষ্ঠীর ভাষা তুলনামুলক কঠিন ও দূর্বোধ্য।নিজস্বভাষায় কথা বললে ও লেখা-লেখি খুবই কম।সাম্প্রতিক কালে শিশুদেরকে নিজস্ব বর্ণমালার প্রাথমিকধারণাপ্রদানেরপ্রয়া সগৃহীত হয়েছে।প্রায়সকলচাকমাওমারমা জনগণ বৌদ্ধ এবং ত্রিপুরারা হিন্দু  ধর্মাবলম্বী।চাকমা,মারমা ও ত্রিপুরা জনগোষ্ঠীর প্রধান উৎসব 'বৈসাবি' বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে উদযাপিত হয়। বৈসাবি মানে বৈশাখী,সাংগ্রাই ও বিজু যা যথাক্রমে চাকমা,ত্রিপুরা ও মারমারা উদযাপন করে। ত্রিপুরা পুরুষদের গড়িয়া নাচ এবং মেয়েদের বোতল নৃত্য উল্লেখযোগ্য বিনোদন পারফর্ম্যান্স।

এখানকার বাংগালীদের ভাষা, সংস্কৃতি ও খাদ্যাভ্যাস  সমতলের বাংগালীদের মতোই।বাংগালীদের মধ্যে আছেমুসলিম,হিন্দুওবৌদ্ধধর্মাবলম্বী।